ফোন খারাপ হওয়ার পেছনে মূলত যে কারণটি দায়ী। সেটি জানতে পড়ুন..

বর্তমান যুগে আমাদের জীবনে একটি খুব গুরুত্বপূর্ণ অংশ হলো স্মার্টফোন, এবং এই স্মার্টফোনকে সুস্থ ভাবে চালিয়ে রাখার জন্য প্রয়োজন চার্জারের। যার সাহায্যে আমরা স্মার্ট ফোনটির ব্যাটারি চার্জ করে দীর্ঘ সময় ব্যবহার করতে পারি। কোম্পানির সাথে দেওয়া চার্জার আমরা জানি একদিন না একদিন খারাপ হয় তাই আমাদের বাধ্য হয়ে সময়ের উপেক্ষা না করে বাইরে থেকে চার্জার কিনে ব্যবহার করতে হয়। ধরে নিন যদি বাজার থেকে কেনা চার্জার টি ভুয়ো হয়।যদি শুধু কোম্পানির নাম দেওয়া কিন্তু ভেতর থেকে যদি লোকাল চার্জার হয়, তবে আমাদের অনেক বড় সমস্যার মুখে পড়তে হতে পারে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই দেখা যায় মোবাইল ফেটে যাওয়ার পেছনে নকল চার্জারের বিশেষ অবদান আছে। চলুন দেখে নেওয়া যাক কিছু সাধারন উপায় যার সাহায্যে কিছু বড় ব্র্যান্ডের নাম এর ব্যবহার করে, এসব ভুয়ো চার্জার আজ বাজারে বর্তমান। তা থেকে বাঁচার উপায় বা চার্জার সনাক্ত করার উপায়, নিচে কিছু কোম্পানির নাম দিয়ে সেই বিশেষ কম্পানি চার্জার আসল কী নকল বোঝার কিছু উপায় বা ট্রিক্স দেওয়া হল।।

Apple iPhone:- IPhone এর ভুয়ো চার্জার সবথেকে বেশি পাওয়া যায় সাধারণ উপায় চার্জার শনাক্ত করার জন্য, “Designed by Apple in California”কথাটি দেখে নেবেন এবং এর সাথে চার্জারে যে লোগোটি থাকে তা সাধারণের থেকে একটু বেশি কালচে ধরনের হয়।।

Samsung:- ভুয়ো চার্জারের কথা বলতে হলে Samsung এর নাম সব থেকে আগে আসে চলুন দেখে নেওয়া যাক Samsung এর চার্জার সনাক্ত করার উপায় ,ভালো করে লক্ষ্য করলে দেখতে পাবেন এই কোম্পানির চার্জারে A+ এবং made in china এই দুটি লেখার সাথে চার্জারের সব বৈশিষ্ট্য লেখা থাকে। সাধারণত এই কম্পানি চার্জার সনাক্ত করা একটু কঠিন তাই প্যাকিং এবং চার্জারের রূপ এবং নিখুঁত লোগো দেখে চার্জারটি ভুয়ো না বোঝা সম্ভব হয়ে থাকে।।

Oneplus:-এই কম্পানির চার্জারটি আসল না নকল লক্ষ্য করা খুবই সহজ, ড্যাশ চার্জার দিয়ে চার্জ করার সময় জ্বলে উঠবে ফোনটি ফ্ল্যাশ লাইট টি যদি এটি না হয় শুধু চার্জিং এর সিগনাল দেখায় তাহলে বুঝে যাবেন চার্জারটি 100{3e863ea6e12c302e1eb6d6e018769bbaf60c8f77faf99ffd57b43556e8cca359} ভুয়ো।

Xiaomi/MI:- Xiaomi এই কোম্পানির নকল চার্জার সাধারণত খুব কম, চার্জার এডাপটার এর উপর স্পিসিফিকেশনস লোগো এবং ক্যাবলের কোয়ালিটি দেখেই বোঝা যায় চার্জারটি নকল নাকি আসল।

Huawei :-এর চার্জার গুলি ও নকল কিনা সনাক্ত করা খুবই সহজ, চার্জারের বারকোড এর উপরে প্যাকেটে লেখা স্পেসিফিকেশনঃ চার্জারের স্পেসিফিকেশনের সাথে মিলে গেলে চার্জারটি আসল না মিললে সেটি নকল।

আশা করলাম এই সামান্য কিছু তথ‍্য দিয়ে আপনাদের সাহায্য করতে পেরেছি আসলে চার্জারের ব্যাপারটি সবাই নজর না দিলেও ব্যাপারটি খুবই গম্ভীর, এর জন্য ফোন পুরোপুরি খারাপ হয়ে বন্ধও হয়ে যেতে পারে এবং মাদারবোর্ড পর্যন্ত চার্জার এর জন্য শর্ট হয়ে খারাপ হয়ে যেতে পারে।।

Related Post

Related Articles

Open

Close